ঢাকা, ৭ই আগস্ট, ২০২২ ইং

বিজয়নগর উপজেলার মুকুটহীন সম্রাট কুতুবউদ্দিন চৌধুরী সেলিম আর নেই

বিজয়নগর

নিউজ

প্রকাশিত: ১:০৫ পূর্বাহ্ণ, এপ্রিল ২৪, ২০২০

আজ তিতাস পূর্ব ব্রাহ্মণবাড়িয়ার তথা বিজয়নগর উপজেলা বাস্তবায়ন পরিষদের আহ্বায়ক বীর মুক্তিযোদ্ধা তিতুমীর সরকারি কলেজ ছাত্র সংসদের সাবেক ভিপি যুদ্ধকালীন কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা কুতুব উদ্দিন চৌধুরী সেলিম চৌধুরী আর নেই ইন্নালিল্লাহি ওয়া লিল্লাহি রাজিউন আজ রাত ১০.৪৫ মিটায় ঢাকা সেন্ট্রাল হাসপাতাল শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন কুতুব উদ্দিন চৌধুরী ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার বর্তমান বিজয়নগর উপজেলার চান্দুরা ইউনিয়ন এর সাতগাঁও ঐতিহ্যবাহী চৌধুরী পরিবার জন্মগ্রহণ করেন তার পিতার নাম মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী তিনি ছাত্রজীবনে ছাত্র রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত হন এবং ছাত্রলীগের রাজনীতির মধ্য দিয়ে নেতৃত্বে আসীন হন ১৯৭০ সালে ঢাকা তিতুমীর সরকারি কলেজের ছাত্র সংসদের প্রথম নির্বাচিত ভিপি একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধ শুরু হলে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করে এবং গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন এবং মুক্তিযুদ্ধ শেষে এলাকার মানুষের সাথে হৃদয়ের বন্ধন এর কারনে এলাকায় থেকে যান এবং চান্দুরা ইউনিয়ন পরিষদের পাঁচবার নির্বাচিত চেয়ারম্যান ছিলেন হাজার ১৯৭৯ সনে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ব্রাহ্মণবাড়িয়া ২ আসন থেকে স্বতন্ত্র প্রার্থী হন তৎকালীন সময়ে তিনি নির্বাচিত হলেও স্বৈরশাসক জিয়াউর রহমান তাকে নির্বাচিত ঘোষণা করে অন্য জনকে নির্বাচিত করে দেশে উপজেলা প্রথা চালু হলে ১৯৮৫ সালে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলা নির্বাচনে তিনি প্রার্থী হন তখন সরকারদলীয় প্রশাসনের কারণে কারচুপির মাধ্যমে তাকে হারিয়ে যাওয়া হয় এছাড়াও তিনি ব্রাহ্মণবাড়িয়া কেন্দ্রীয় সমবায় সমিতি বিআরডিবি নির্বাচিত চেয়ারম্যান ছিলেন চেয়ারম্যান থাকাকালীন সময়ে তিনি অনুভব করেছিলেন তিতাস পূর্বাঞ্চলের দশটি ইউনিয়ন নিয়ে উপজেলা প্রতিষ্ঠা না হলে এলাকার উন্নয়ন সম্ভব নয় সেই প্রেক্ষাপটে ১৭৭৩ সালে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু ব্রাহ্মণবাড়িয়া আসলে তিতাস পূর্বাঞ্চলের দশটি ইউনিয়ন থেকে কয়েক হাজার জনগণ নিয়ে তিতাস পূর্বাঞ্চল আলাদা থানা ঘোষণার জন্য দাবি করেন তারই ধারাবাহিকতায় তিতাস পূর্ব থানা বাস্তবায়ন পরিষদ গঠন করেন এবং তিনি উপজেলা বাস্তবায়ন পরিষদের আহবায়ক এর দায়িত্ব পালন করেন এবং উপজেলা গঠনের জন্য আনুষ্ঠানিক প্রশাসনের নিকট আনুষ্ঠানিক প্রস্তাব পেশ করেন তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার একান্ত সচিব বর্তমান সংসদ সদস্য তার ঘনিষ্ঠ বন্ধু র আ ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী সার্বিক সহযোগিতায় সেই ধারাবাহিকতা এবং আন্দোলন-সংগ্রামের কারণেই দশটি ইউনিয়ন নিয়ে বিজয়নগর উপজেলা নামে আলাদা উপজেলা গঠন করেন তিনি বিজয়নগর মানুষের হৃদয়ে স্থান করে নেন এবং তার বলিষ্ঠ নেতৃত্বের কারণে শুধু বিজয়নগর নয় সারা ব্রাহ্মণবাড়িয়ার তথা বৃহত্তর কুমিল্লা জেলার তাকে চান্দুরার সেলিম চৌধুরী হিসেবে চিনতেন তিনি যাদেরকে সাথে নিয়ে ছাত্র রাজনীতি করেছেন কালের বিবর্তনে অনেকই এমপি হয়েছেন মন্ত্রী হয়েছেন পেয়েছেন রাষ্ট্রের অনেক গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব কিন্তু তিনি এলাকায় অবস্থান না করে ঢাকা অবস্থান করলে তিনিও বাংলাদেশের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করতেন তিনি এলাকার মানুষের কথা ভেবে এলাকায় থেকে যান মৃত্যুকালে তিন পুত্র দেখে গেছেন এবং ব্রাহ্মণবাড়িয়া গেলা জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের অন্যতম সদস্য ছিলেন এদিকে তার মৃত্যুর সংবাদ এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে তার পাটিরা তাকে যারা পছন্দ করতেন তারা কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন তিনি ছিলেন বিজয়নগর উপজেলার মুকুটহীন সম্রাট তিনি

  • এই বিভাগের সর্বশেষ