ঈদের ছুটিতেও সচল থাকবে চট্টগ্রাম বন্দর-কাস্টমস

প্রকাশিত: ৬:৪৫ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ২, ২০২৪

আগামী সপ্তাহে লম্বা ছুটির ফাঁদে পড়তে যাচ্ছে দেশ। শবে কদর, ঈদুল ফিতর এবং বাংলা নববর্ষের ছুটির সঙ্গে সাপ্তাহিক ছুটি মিলিয়ে সেটি হবে আটদিনের। তবে এ ছুটিতেও দেশের আমদানি-রপ্তানি কার্যক্রম সচল রাখতে চট্টগ্রাম বন্দর ও কাস্টমসের কার্যক্রম চালু রাখার সিদ্ধান্ত হয়েছে। মঙ্গলবার (২ এপ্রিল) জাগো নিউজকে এ তথ্য জানিয়েছেন চট্টগ্রাম বন্দর ও কাস্টমস হাউজের কর্মকর্তারা।

চাঁদ দেখা সাপেক্ষে আগামী ১০ বা ১১ এপ্রিল দেশে মুসলমানদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব ঈদুল ফিতর উদযাপন হবে। সরকার রমজান মাস ৩০ দিন ও ঈদুল ফিতর ১১ এপ্রিল ধরে আগামী ১০, ১১ ও ১২ এপ্রিল ঈদের ছুটি নির্ধারণ করেছে। ঈদের ছুটির পর ১৩ এপ্রিল শনিবার সাপ্তাহিক ছুটি এবং ১৪ এপ্রিল বাংলা নববর্ষের ছুটি। এছাড়া ঈদের আগে ৭ এপ্রিল শবে কদরের ছুটি। তার আগের দুদিন ৫ ও ৬ এপ্রিল সাপ্তাহিক ছুটি।

চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের সচিব মো. ওমর ফারুক জাগো নিউজকে বলেন, ‘ঈদুল ফিতরের ছুটিকালীন চট্টগ্রাম বন্দরের অপারেশনাল কার্যক্রম পুরোপুরি চালু থাকবে। শুধু ঈদের দিন সকালের শিফটে আট ঘণ্টা কনটেইনার হ্যান্ডলিং ডেলিভারি কার্যক্রম বন্ধ থাকবে। স্বাভাবিকভাবেই এসময় কাজের কোনো চাপ থাকে না। তাই আশা করছি ওইটুকু সময়ে কোনো সমস্যা হবে না।’

ঈদুল ফিতরের ছুটিকালীন চট্টগ্রাম বন্দরের অপারেশনাল কার্যক্রম পুরোপুরি চালু থাকবে। শুধু ঈদের দিন সকালের শিফটে আট ঘণ্টা কনটেইনার হ্যান্ডলিং ডেলিভারি কার্যক্রম বন্ধ থাকবে। স্বাভাবিকভাবেই এসময় কাজের কোনো চাপ থাকে না।

তিনি বলেন, ‘এরই মধ্যে এ সংক্রান্ত নির্দেশনা আমাদের কর্মকর্তাদের কাছে পৌঁছানো হয়েছে। যে কেউ চাইলে ঈদের দিন বিকেলেও পণ্য ডেলিভারি নিতে পারবেন। এছাড়া ঈদের দিন সকালেও জেটিতে জাহাজীকরণ কার্যক্রম চালু থাকবে। ঈদের ছুটিতে যাতে কনটেইনার ডেলিভারি স্বাভাবিক থাকে সে লক্ষ্যে স্টেকহোল্ডারদের চিঠি দেওয়া হয়েছে আগাম প্রস্তুতি নিয়ে রাখার জন্য।’

বাংলাদেশ ফ্রেইট ফরওয়ার্ডার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বাফা) সহ-সভাপতি খায়রুল আলম সুজন বলেন, ‘সব মিলিয়ে ছুটিটা এক সপ্তাহের বেশি হওয়ায় ঈদে একটা বড় চাপের আশঙ্কা করছি। বিশেষ করে ঈদের ছুটিতে আমদানি পণ্যের ডেলিভারি বেশি হওয়ায় ডিপোগুলোতে স্থান সংকট তৈরি হয়। আবার শ্রমিকদের একটা বড় অংশ বাড়ি চলে যায়। তাই ঈদে আমাদের স্বস্তির জায়গাটা থাকে না।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমরা আগের অভিজ্ঞতা থেকে দেখেছি বন্দরের কার্যক্রম পুরোপুরি চালু থাকলেও কাস্টমসের ক্ষেত্রে সমস্যায় পড়তে হয়। বিশেষ করে আমদানির ক্ষেত্রে রাজস্ব কর্মকর্তাদের পাওয়া গেলেও রপ্তানির ক্ষেত্রে সমস্যা পোহাতে হয়।’

তবে চট্টগ্রাম কাস্টমস কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, ঈদের ছুটিতে তারা বিশেষ ব্যবস্থায় কার্যক্রম চালু রাখার উদ্যোগ নিয়েছেন।

সব মিলিয়ে ছুটিটা এক সপ্তাহের বেশি হওয়ায় ঈদে একটা বড় চাপের আশঙ্কা করছি। বিশেষ করে ঈদের ছুটিতে আমদানি পণ্যের ডেলিভারি বেশি হওয়ায় ডিপোগুলোতে স্থান সংকট তৈরি হয়। আবার শ্রমিকদের একটা বড় অংশ বাড়ি চলে যায়। তাই ঈদে আমাদের স্বস্তির জায়গাটা থাকে না।

বিষয়টি নিশ্চিত করে চট্টগ্রাম কাস্টমস হাউজের অতিরিক্ত কমিশনার মো. মুশফিকুর রহমান জাগো নিউজকে বলেন, ‘ছয়জন ডেপুটি কমিশনার এবং একজন সহকারী কমিশনারের তত্ত্বাবধানে কাস্টমস হাউজের কার্যক্রম চালু থাকবে। এক্ষেত্রে আমাদের মধ্যে যারা ভিন্ন ধর্মাবলম্বী কর্মকর্তা রয়েছেন, আমরা তাদের সহায়তা নিচ্ছি। দেশের স্বার্থে তারা ছুটির সময়ে কাজ করবেন। পাশাপাশি যেসব কর্মকর্তা-কর্মচারী স্থানীয়, আমরা তাদের সহায়তাও নিচ্ছি। আমদানি ও রপ্তানিকারকরা নিশ্চিন্তে এসময়ে সেবা পাবেন আশা করি।’

তবে ঈদুল ফিতর উপলক্ষে চট্টগ্রামের বেসরকারি আইসিডিগুলোর অপারেশনাল কার্যক্রম ৩৪ ঘণ্টা বন্ধ থাকবে। ১১ এপ্রিল ঈদ হলে আগের দিন ১০ এপ্রিল রাত ১২টা থেকে ১২ এপ্রিল সকাল ১০টা পর্যন্ত কার্যক্রম বন্ধ থাকবে। জাগো নিউজকে এ তথ্য জানিয়েছে আইসিডি মালিকদের সংগঠন বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ কনটেইনার ডিপো অ্যাসোসিয়েশন (বিকডা)।

বিকডার সাধারণ সম্পাদক রুহুল আমিন শিকদার জাগো নিউজকে বলেন, ‘বিষয়টি রপ্তানিকারক, আমদানিকারক, শিপিং লাইন, ফ্রেইট ফরোয়ার্ডার, সিঅ্যান্ডএফ এজেন্টসহ আইসিডির সব স্টেকহোল্ডারকে অবহিত করছি।’

দেশের আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্যের ৯২ শতাংশ সম্পন্ন হয় চট্টগ্রাম বন্দরের মাধ্যমে। চট্টগ্রাম বন্দরে খালাস হওয়া পণ্য এবং চট্টগ্রাম বিমানবন্দরে আসা পণ্যের শুল্কায়ন করে চট্টগ্রাম কাস্টমস হাউজ।