বিজয়নগরে সালিশ কারকের হাতে শ্লীলতাহানির শিকার বিচার প্রার্থী নারী

প্রকাশিত: ৯:২৯ পূর্বাহ্ণ, মে ৫, ২০২২

নিউজ ডেস্ক : ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগরে বিচার চাইতে গিয়ে সালিশ কারকের হাতে শ্লীলতাহানির অভিযোগে lআদালতে মামলা হয়েছে।

এ ঘটনায় ভিকটিম উপজেলার 1পাহাড়পুর ইউনিয়নের ধোরানাল গ্রামের আ:গফফারের স্ত্রী শাহিনুর নিজে বাদী হয়ে গত ৭ এপ্রিল রোজ বৃহস্পতিবার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল- ৩,ব্রাহ্মণবাড়িয়া তিন জনকে আসামী করে এ মামলা করেন।আসামীরা ধোরানাল গ্রামের আ:মালেক, পিতা- মৃত আফিল উদ্দিন, আলমগীর খাঁন, পিতা- মৃত- ইয়াছিন খাঁন,জহিরুল ইসলাম খাঁন,পিতা- মৃত আয়ূব আলী খাঁন।

বিচারক শাহিনুর এর অভিযোগ আমলে নিয়ে পিবিআইকে তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দিয়েছেন।

মামলায় বাদী উল্লেখ করেছেন, আসামীগন বখাটে, লম্পট ও চরিত্রহীন  লোক জন বটে। ১নং আসামীর বিরুদ্ধে মাননীয় ট্রাইব্যুনালে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ১১(ক)/৩০ ধারা মোতাবেক নারী শিশু নং-১১/২০১১ মোকদ্দমা চলমান আছে। আসামীগন বাদীনির পাড়া প্রতিবেশী হয় বটে।লম্পট, বখাটে ও দুশ্চরিত্রবান আসামীগন নিরীহ বাদীনির রূপ-যৌবনের প্রতি লুলোপ দৃষ্টি প্রদশর্ন করত:যৌন লিপ্সা চরিতার্থ  করার জন্য কুপ্রস্তাব দিলে বাদীনি আসামীগনের প্রস্তাবে রাজি না হইলে আসামীগন সুযোগমত পাইলে বাদীনির ইজ্জত সম্ভ্রম লুন্ঠন করিবে বলিয়া হুমকি দিয়া আসিতেছে।

এমতাবস্থায় গত ৭ এপ্রিল রোজ বৃহস্পতিবার বাদীনি রমজানের সেহেরি তৈরী করার জন্য ঘুম থেকে ওঠে বসতবাড়ির পশ্চিম দিকে টিউবওয়েল থেকে পানি আনার জন্য গেলে পূর্ব থেকেই উৎপাতিয়া থাকা আসামীগন বাদীনিকে একা পাইয়া ধর্ষণ করার হীন উদ্দেশ্যে কোনরূপ সুরচিৎকার করলে প্রাণে হত্যার ভয়-ভীতি দেখাইয়া জবরাইয়া ধরিয়া মুখ বাধিয়া মাঠিতে ফেলে পরনের কাপড় চোপড় টানিয়া ছিড়িয়া বিবস্ত্র করে আসামীগন বাদীনির ইচ্ছার বিরুদ্ধে ধর্ষণ করতে চাইলে আসামীগনের সাথে ধস্তাধস্তিতে বাদীনির শরীরের বিভিন্ন স্পর্শকাতর অঙ্গে জখম হয়। তদাঅবস্থায় বাদীনির গুংগানির শব্দ শুনিয়া বাড়ির ও আশপাশের লোকজন টর্চ লাইট নিয়ে ঘটনাস্থলে আসিলে আসামীগন দ্রুত ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায়।পরে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালে এসে চিকিৎসা করিয়া সুস্থ হয়ে আদালতে মামলা করেছেন তিনি।নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল- ৩,ব্রাহ্মণবাড়িয়া মামলা নং-৮৪/২০২২ ইং।