বিজয়নগরে অভিযানের উদ্দেগে করোনা ভাইরাস সংক্রান্ত এক প্রশিক্ষণ ও সচেতন মূলক আলোচনা সভা

প্রকাশিত: ৬:৫৫ অপরাহ্ণ, মার্চ ১০, ২০২০

বিজয়নগরউপজেলায় আজ অভিযানের প্রাথমিক স্বাস্থ্য সেবা প্রকল্পের করোনা ভাইরাস সংক্রান্ত এক প্রশিক্ষণ ও সচেতন মূলক আলোচনা সভা সকাল দশটায় বিজয়নগর উপজেলার অভিযান কার্যালয় অভিযান এর প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান সাংবাদিক সারোয়ার হাজারী পলাশ এর সভাপতিত্বে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয় উক্ত আলোচনা সভা উদ্বোধন করেন প্রেসক্লাব বিজয়নগর সভাপতি ও সাপ্তাহিক তিতাস বাণী পত্রিকার সম্পাদক মৃনাল চৌধুরী লিটন প্রধান আলোচক ছিলেন ডাঃ শোয়াইব মোঃ মিরাজ, এমবি‌বিএস বিশেষ অতিথি ছিলেন সাংবাদিক মাইনউদ্দীন চিশতী বক্তব্য রাখেন মিজানুর রহমান নিঝুম সভায় করোনা ভাইরাস নিয়ো আলোচক গন আলোচনা করে বলেন নতুন এ ভাইরাসে আক্রান্তদের মধ্যে জ্বর, শ্বাসকষ্ট, কাশির লক্ষণ থাকবে। ভ্রমণের সময় বিশেষ করে চীন থেকে বাংলাদেশে ও বাংলাদেশ থেকে চীনে গেলে শ্বাসতন্ত্রের সংক্রমণ ঠেকানোর ব্যবস্থা নিতে হবে। এ ক্ষেত্রে চারটি ব্যবস্থার পরামর্শ হচ্ছে- * আক্রান্ত ব্যক্তি থেকে কম পক্ষে দুই হাত দূরে থাকতে হবে। * বারবার প্রয়োজন মতো সাবান পানি দিয়ে হাত ধুতে হবে। বিশেষ করে আক্রান্ত ব্যক্তির সংস্পর্শে এলে বা ভাইরাস ছড়িয়েছে এমন এলাকা ভ্রমণ করলে এ সতর্কতা নিতে হবে। * জীবিত ও মৃত গবাদি পশু/বন্যপ্রাণী থেকে দূরে থাকতে হবে। * ভ্রমণকারী আক্রান্ত হলে হাঁচি/কাশির সময় দূরত্ব বজায় রাখা, মুখ ঢেকে হাঁচি/কাশি দেয়া ও যেখানে সেখানে থুথু না ফেলা। এ ভাইরাস যেন বাংলাদেশে ছড়াতে না পারে তার জন্য হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরসহ দেশে প্রবেশের সব পথে করোনা ভাইরাস স্ক্রিনিং কার্যক্রম নেয়া হয়েছে। সেই সঙ্গে কেউ জ্বর নিয়ে দেশে ঢুকছে কিনা তা শনাক্ত করতে শাহজালাল বিমানবন্দরসহ দেশের সাতটি প্রবেশপথে ডিজিটাল থার্মাল স্ক্যানার দিয়ে ভ্রমণকারীদের শরীরের তাপমাত্রা পরীক্ষা করা হচ্ছে। এ ধরনের রোগীদের আলাদা করে চিকিৎসার জন্য তৈরি রাখা হয়েছে শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের কোয়ারেন্টাইন ওয়ার্ড ও কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ড। করোনা ভাইরাস সম্পর্কে যা জানা গেছে ১৯৬০ সালে প্রথম করোনা ভাইরাস শনাক্ত করা হয়। বিভিন্ন ধরনের করোনা ভাইরাসের মধ্যে মানুষের মধ্যে সংক্রমিত হয় সাতটি ভাইরাস। এ ভাইরাস বিভিন্ন প্রাণী থেকে মানুষে সংক্রমিত হয়; কিন্তু এখন পর্যন্ত সংক্রমণের নির্দিষ্ট উৎস বের করা সম্ভব হয়নি। এ ভাইরাসে আক্রান্ত হলে কিডনি বিকল হয়ে মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে।