কুমিল্লার মহেশাঙ্গন ও রামমালা পাঠাগার

প্রকাশিত: ৯:০৬ অপরাহ্ণ, মার্চ ৫, ২০২০

বিজয়নগর নিউজ।। ঊনবিংশ শতকের মধ্যভাগে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিটঘর গ্রামে জন্ম নেওয়া কর্মযোগী মহেশ চন্দ্র ভট্টাচার্য ১৯৪৪ সালে পরলোকগমন করেন। পারিবারিক দারিদ্র্যের কারণে লেখাপড়া না করতে পারা এই ব্যক্তি সেই সময়ের কুমিল্লা শহরে এসে ব্যবসা শুরু করেন এবং বিপুল ধনসম্পদের অধিকারী হন। কিন্তু বৈষয়িক উন্নতির চেয়ে জ্ঞানচর্চার উন্নতিকেই তিনি মানুষের মুক্তির প্রকৃত উপায় হিসেবে চিহ্নিত করতে পেরেছিলেন। তাই নিজের আয়ের অর্ধেক নিয়মিতভাবে তিনি দান করে গেছেন প্রজন্মের শিক্ষাবিস্তারের পেছনে। এমনকি তাঁর কুমিল্লার সম্পত্তি, ব্যবসা—সবই দান করে গেছেন শিক্ষাজ্ঞানচর্চা অব্যাহত রাখতে। ভারতের কাশিতেও আছে তাঁর আনুকূল্যে গড়ে ওঠা বিদ্যাপীঠ (১৯১০ সালে প্রতিষ্ঠিত)। নিজের এই ঔদার্যের কথা তিনি কাউকে জানতে দিতে চাননি। সে কারণেই হয়তো আজও বাংলাদেশের মানুষ তাঁর সম্পর্কে অবগত নয়। অথচ কুমিল্লায় সেই আমলে তিনি যা করেছেন, অন্তত তাঁর মৃত্যুর পর সে তথ্য প্রচারণার প্রয়োজন ছিল জাতি হিসেবে আমাদের এগিয়ে যাওয়ার অনুপ্রেরণা পাওয়ার জন্য। কুমিল্লায় ঈশ্বর পাঠশালা, দাতব্য চিকিৎসালয়, মায়ের নামে গড়ে তোলা রামমালা গ্রন্থাগার, রামমালা ছাত্রাবাস, নিবেদিতা ছাত্রীনিবাস ইত্যাদি আজও আলো ছড়িয়ে চলেছে সরকারি-বেসরকারি কোনো রকম সহায়তা ছাড়াই। তাঁরই প্রতিষ্ঠা করা ট্রাস্টির বর্তমান সদস্যরাই এ সবকিছুর তত্ত্বাবধান করেন। ছাত্রাবাসের শিক্ষার্থীদের যাবতীয় খরচ বহন করে ট্রাস্ট। উপমহাদেশের রাজনীতি, সংস্কৃতি ও ধর্মচর্চার অবাধ কেন্দ্র হিসেবে গড়ে উঠেছিল মহেশাঙ্গন। সম্প্রতি এই প্রতিষ্ঠান পরিদর্শনের পর মনে সন্দেহ জেগেছে এর ভবিষ্যৎ নিয়ে। শিক্ষা বিষয়ে মহেশ চন্দ্রের নিজস্ব দর্শন ছিল। তিনি মনে করতেন, একমাত্র শিক্ষাই মানুষকে মুক্তি দিতে পারে, করে তুলতে পারে আত্মনির্ভর। ইন্দ্রকুমার সিংহের কর্মযোগী মহেশ চন্দ্র ও কুমিল্লা মহেশাঙ্গন গ্রন্থ থেকে জানা যায়, মহেশ চন্দ্র ‘স্বাবলম্বন’ কথাটিকে অন্তরের স্বাধীন ভাব হিসেবেই বুঝতেন এবং সেই স্বাধীন ভাব অর্জনের পরম উপায় হিসেবে শিক্ষালাভ করা ও জ্ঞানচর্চা অব্যাহত রাখাকে অবিকল্প মানতেন। মহেশ চন্দ্র তাঁর কোনো কথাই লিপিবদ্ধ করে যাননি। তাঁর একমাত্র গ্রন্থ আত্মকথায় তিনি তুলে ধরেছেন ব্যবসায় সাফল্য লাভের বিবরণ। এটা তিনি করেছেন ব্যবসায়ী হিসেবে নিজের প্রতিষ্ঠা লাভ সম্পর্কে নানা অলৌকিক অপপ্রচারের জবাব দেওয়ার জন্য। অন্যদিকে নিজের চিন্তাদর্শন প্রকাশ করাও তাঁর কাছে অহংকার প্রচারের শামিল ছিল। কাজের মধ্য দিয়েই প্রকাশ করেছেন নিজেকে। তাঁর প্রতিষ্ঠিত বিদ্যাপীঠের শিক্ষক কেমন হবেন, শিক্ষার্থীরা কেমন হবেন, সমাজে তাঁরা কী অবদান রাখবেন—সবকিছু সম্পর্কেই তাঁর ছিল স্পষ্ট দিকনির্দেশনা, যা আজও পালন করার চেষ্টা করা হয় ঈশ্বর পাঠশালায়। মহেশ চন্দ্র তাঁর নিয়োগপ্রাপ্ত গ্রন্থাগারিক রাসমোহন চক্রবর্তীর মাধ্যমে সারা পৃথিবীর বিভিন্ন ধর্ম, দর্শন ও জ্ঞানচর্চার নানা ধরনের প্রকাশিত পুস্তক এবং বৃহত্তর কুমিল্লা, সিলেট অঞ্চল থেকে প্রায় আট হাজার হস্তলিখিত পাণ্ডুলিপি সংগ্রহ করে গড়ে তুলেছিলেন রামমালা গ্রন্থাগার। হস্তলিখিত পাণ্ডুলিপির মধ্যে প্রায় ছয় হাজার সংস্কৃত ভাষায় রচিত, বাকিগুলো বাংলায়। তুলট কাগজ, তালপাতা, কলাপাতা, কাঠসহ নানা উপাদানের পাণ্ডুলিপিগুলো আগ্রহীদের বিস্ময় জাগায়। এই পাণ্ডুলিপিগুলোর পাঠোদ্ধার করার বিশেষ কোনো উদ্যোগের কথা জানা যায় না। বরং অযত্ন-অবহেলায় সেগুলোকে নষ্ট হতে দেওয়া হচ্ছে অবলীলায়। মহেশাঙ্গনের নাটমন্দিরে আসা ভক্তদের আওয়াজ আর মাঠে খেলার অবাধ সুযোগে উড়তে থাকা ধুলোয় জলীয় বাষ্পে পাতাগুলো নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। ছাদ থেকে চুইয়ে পড়া বৃষ্টির পানিতেও ঝাপসা হয়ে এসেছে অমূল্য হস্তলিপি। খোদ কুমিল্লার বেশির ভাগ মানুষ জানেই না, কী আছে এই গ্রন্থাগারে। গবেষকেরাও যে চট করে কিছু খুঁজে পাবেন, সে উপায়ও নেই। নেই কোনো তালিকা বা ক্যাটালগ। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের পাণ্ডুলিপি বিভাগ একবার ফোর্ড ফাউন্ডেশনের সহযোগিতায় প্রায় আড়াই হাজার হস্তলিখিত পাণ্ডুলিপি দুই কিস্তিতে ঢাকায় নিয়ে গিয়ে মাইক্রোফিল্ম করেছিল। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের পাণ্ডুলিপি বিভাগে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, রামমালা গ্রন্থাগারের পাণ্ডুলিপির সব মাইক্রোফিল্মই নষ্ট হয়ে গেছে। ট্রাস্টি দ্বারা পরিচালিত হওয়ায় সরকারের কোনো দায় নেই রামমালা গ্রন্থাগারের অমূল্য সংগ্রহ সংরক্ষণ করার। কিন্তু দেশের মূল্যবান সম্পদ রক্ষায় রাষ্ট্রের দায়বদ্ধতা কিছুতেই এড়ানো যায় না। বাংলা একাডেমি, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, জাতীয় জাদুঘর ও বাংলাদেশ সরকারের নিয়ন্ত্রণাধীন অন্যান্য প্রতিষ্ঠানে জমাকৃত পাণ্ডুলিপিগুলোর সমন্বিত তালিকা প্রস্তুতকরণে বা পাণ্ডুলিপি গবেষণায় তরুণ প্রজন্মকে উৎসাহিত বা আকর্ষিত করার ব্যাপারে কারও কোনো ভূমিকার কথা জানা যায় না। তবে রামমালা গ্রন্থাগার ও মহেশাঙ্গনের সমস্যা অন্য অর্থেও প্রকট হয়ে উঠেছে।

মহেশাঙ্গনের সমস্যা অন্য অর্থেও প্রকট হয়ে উঠেছে। অনেক স্বার্থলোভী মানুষ মহেশাঙ্গনের সম্পত্তির হিসাব কষতে শুরু করেছেন। এমনকি ট্রাস্টির সদস্যরাও মহেশাঙ্গনের সম্পদ কুক্ষিগত করার মৌখিক অভিযোগ তুলছেন পরস্পরের বিরুদ্ধে। রামমালা গ্রন্থাগার ও ছাত্রাবাসের ৭২ বিঘা সম্পত্তি ১৯৫০ সালে তৎকালীন পাকিস্তান সরকার দখল করে। পরে সেখানে স্থানান্তর করা হয়েছে সার্ভে ইনস্টিটিউট। এই ৭২ বিঘা জমি নিয়ে ১৯৪৮ সালে ট্রাস্টের পক্ষে হেরম্ব চন্দ্র ভট্টাচার্য পাকিস্তান সরকারের রেভিনিউ ডিপার্টমেন্টের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে মামলা করেছিলেন। ১৯৬৩ সালে আদালত ছাত্রাবাস, বিদ্যালয়, গ্রন্থাগার, জাদুঘর, কৃষিজমি ইত্যাদির জন্য মহেশ চন্দ্রের দান করা সমুদয় সম্পত্তি ট্রাস্টকে ফেরত দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়। পাকিস্তান সরকার সে নির্দেশ মানেনি। বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার ৪৩ বছর পেরিয়ে গেলেও এ রায় কার্যকর করার উদ্যোগ নেই। মহেশ চন্দ্রের অমর কীর্তিকে ধরে রাখা ও এর উন্নয়ন সাধন, সর্বোপরি রামমালা গ্রন্থাগারের মূল্যবান জ্ঞানভান্ডার টিকিয়ে রাখতে এবং পাঠক-গবেষকদের ব্যবহারের সুযোগ তৈরি করে দিতে হবে। পাঠাগারের দুর্লভ গ্রন্থের ভান্ডার, পত্রপত্রিকা ও হস্তলিখিত পাণ্ডুলিপির পূর্ণাঙ্গ তালিকা প্রস্তুত ও তা ডিজিটালাইজড করে সহজেই সবার জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া যায়। তাতে মহেশ চন্দ্রের মতো একজন মহান শিক্ষানুরাগীর প্রতি জাতির ঋণ সামান্য হলেও লাঘব হবে। শান্ত নূরুননবী: উন্নয়নকর্মী।