ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার ৫শ ৭৯ মন্ডপে শারদীয় দূর্গাপূজা শুরু

প্রকাশিত: ১১:১০ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ৪, ২০১৯

বিজয়নগর নিউজ।।আজ শুক্রবার (০৪অক্টোবর ২০১৯) শুরু হচ্ছে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দূর্গাপূজা। আজ মন্ডপে মন্ডপে বেজে উঠবে ঢাকঢোল আর কাঁসর ধ্বনি। পূজাকে সামনে রেখে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের মধ্যে বিরাজ করছে উৎসব আমেজ। ইতিমধ্যেই পূজামন্ডপের সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। পূজামন্ডপগুলোকে সাজানো হয়েছে নান্দনিক সাজে। প্রতিটি মন্ডপে দূর্গা, লক্ষী, সরস্বতী, কার্তিক, গণেশ, অসুর, সিংহ, মহিষ, পেঁচা, হাঁসসহ প্রায় ১২টি প্রতিমা শোভা পাচ্ছে। দুর্গাদেবীকে বরণ করতে চলছে ব্যাপক প্রস্তুতি।

এ বছর ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার ৯টি উপজেলার ৫শ ৭৯ মন্ডপে শারদীয় দূর্গাপূজা শুরু হবে। যা গত বছরের তুলনায় ৯টি মন্ডপ বেশী।
মন্ডপগুলো হচ্ছে ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরসভাসহ সদর উপজেলায় ৮১টি, নাসিরনগর উপজেলায় ১৪৭টি, সরাইল উপজেলায় ৪৫টি, কসবা উপজেলায় ৪৯টি, নবীনগর উপজেলায় ১২৪টি, আশুগঞ্জ উপজেলায় ১৪টি, বাঞ্ছারামপুর উপজেলায় ৪৩টি, আখাউড়া উপজেলায় ২০টি এবং বিজয়নগর উপজেলায় ৫৬ টি। পূজা উপলক্ষে প্রতিটি মন্ডপে সরকারিভাবে ৫শত কেজি করে চাল বরাদ্ধ করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি সোমেশ রঞ্জন রায় জানান, এ বছর ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলায় ৫৭৯টি মন্ডপে পূজা অনুষ্ঠিত হবে। যা গত বছরের চেয়ে ৯টি বেশী।
এ ব্যাপারে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার পুলিশ সুপার মুহাম্মদ আনিসুর রহমান খান জানান, সুষ্ঠ, সুন্দর ও উৎসবমুখর পরিবেশে দূর্গাপূজা পালনের জন্য ব্যাপক প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে।

তিনি বলেন, এ বছর ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ৫৭৯টি মন্ডপে একযোগে দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হবে। তিনি বলেন, এসব মন্ডপের মধ্যে ২১৫টিকে ‘ঝুঁকিপূর্ণ’ (অধিক গুরুত্বপূর্ণ) হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। এছাড়া ২৩০টি গুরুত্বপূর্ণ ও ১৩৪টি সাধারন পূজামন্ডপ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে।

ওইসব পূজা মন্ডপে আইন শৃংখলার দায়িত্বে থাকবে পুলিশ ও আনসারের প্রায় পাঁচ হাজার সদস্য। পূজা উপলক্ষে পুলিশের কন্ট্রোলরুমও থাকবে।
এদিকে পূজা উপলক্ষে বুধবার বিকেলে পূজা উদযাপন পরিষদের নেতৃবৃন্দের সাথে জেলা পুলিশের মত বিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আনিসুর রহমানের সভাপতিত্বে মতবিনিময় সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মোঃ আলমগীর হোসেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মোঃ রেজাউল কবির, জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি সোমেশ রঞ্জন রায়, ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেস ক্লাবের সাধারন সম্পাদক দীপক চৌধুরী বাপ্পী, পরিতোষ রায়, নীতিশ রঞ্জন রায়, উজ্জল চক্রবর্তী, বিশ্বজিৎ পাল বাবু প্রমুখ।